1. bd35be9017d4c9453cd35cbbf143797e : admi2017 :
  2. editor@ajkergopalganj.com : Ajker Gopalganj : Ajker Gopalganj
বৃহস্পতিবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৯:৪৬ পূর্বাহ্ন

নিখোঁজের ১৭ বছর পর পিতৃ গৃহে কন্যা

  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ২১ জানুয়ারী, ২০২১
  • ১৭৯ বার পঠিত

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেস বুকের বদৌলতে নিখোঁজের ১৭ বছর পর পিতৃ গৃহে ফিরেছে কন্যা তানিয়া আক্তার (২৫)।
গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া উপজেলার বাগান উত্তরপাড় গ্রামের সুন্দর আলী সিকদারের মেয়ে তানিয়া ।
বাবার বাড়িতে তানিয়া স্বামী, শ্বশুর, ছেলে, মেয়ে ও পরিবারের সদস্য নিয়ে এখন উৎসব মুখর দিন কাটাচ্ছেন। তাকে এক নজর দেখতে প্রতিদিন তানিয়ার বাবার বাড়িতে লোকজন ভিড় করছেন। তানিয়ার বাবা মেয়ে ফিরে পাওয়ার আনন্দে প্রতিদিনই তার বাড়িতে অভ্যাগতদের মিষ্টি দিয়ে আপ্যায়ন করছেন। তাদের কাছে মেয়ের জন্য চাইছেন দোয়া।
২০০৪ সালে ঢাকা শহরে বেড়াতে নিয়ে নিখোঁজ হয় তানিয়া। তারপর কোট গেছে ১৭টি বছর। এরমধ্যে তানিয়া ঢাকার কলাবাগানের বাসিন্দা আরজুদা খাতুন মিলনের বাড়িতে প্রতিপালিত হয়েছে। মিলনের ছেলে কলাবাগান মসজিদের ইমাম (বর্তমানে জার্মাণ প্রবাসী) রিপন তাকে পিতৃ¯েœহে বড় করেছেন। তিনি তাকে কোন দিনই বাবা মায়ের অভাব বুঝতে দেননি। ২০১৫ সালে তানিয়াকে তারা ব্রাহ্মনবাড়িয়া জেলার আখাউড়া পৌর শহরের শান্তিনগর এলাকার সুরুজ মিয়ার ছেলে কাঠ ব্যবসায়ী আনোয়ার হোসেনের সাথে বিয়ে দেন। বর্তমানে তানিয়া একটি ছেলে ও একটি মেয়ে সন্তানের জননী। মেয়ে ও নাতি-নাতনি নিয়ে সুন্দর আলীর ভাল কাটছে।
তানিয়ার বাবা সুন্দর আলী সিকদার বলেন, ২০০৪ সালে তানিয়ার বয়স ছিলো ৮ বছর। তখন তাকে ঢাকা বেড়াতে নিয়ে যাই। আমার ফুফুর আগারগাঁওয়ের বাসায় তাকে রেখে আমি গ্রামে চলে আসি। সেখান থেকে তানিয়া নিখোঁজ হয়। এ ঘটনায় আমি তেজগাঁও ও কোটালীপাড়া থানায় জিডি করি। পত্র পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দেই। আমি তানিয়াকে পাগলের মতো ঢাকা খুঁজেছি। নামাজ পড়ে তার জন্য দোয়া মোনাজাত করেছি। বাড়িতে কোরানখানী দিয়েছি। গনক বাড়িতে গিয়েছি। কিন্তু মেয়ের কোন সন্ধান পাইনি। তানিয়া নিখোঁজ হওয়ার পর আমি শুধু ছটফট করেছি। গত ৮ জানুয়ারী ফেসবুকে আমার মেয়ে তানিয়ার ছোট বেলার ছবি ও সাথে আমর, স্ত্রী , ছেলে ও মেয়েদের নাম দেখে কোটালীপাড়ার ইমরান ঘরামীর স্ত্রী লাবণ্য ওরফে পলি আমাকে বিষয়টি জানায়। তিনি ফেসবুক থেকে আমার জামাতার মোবাইল নম্বর সংগ্রহ করে দেন। ওই দিনই সন্ধ্যা ও রাতে মেয়ে জামাইয়ের সাথে কথা বলে আমার মেয়ের সন্ধান পাই। পরের দিন আমরা ঢাকা যাই। জামাই কমলাপুর রেল স্টেশন থেকে ট্রেনে করে আমাদের আখাউড়া নিয়ে যায়। সেখানে গিয়ে মেয়েকে পেয়ে আমি আবেগে আপ্লুত হয়ে পড়ি। দু’ জনের চোখ থেকে গড়িয়ে পড়ে আনন্দ অশ্রæ। একদিন সেখানে অস্থান করে মেয়ে-জামাই সহ তাদের স্বজনদের নিয়ে ঢাকা ফিরে এসে রিপন ভাইয়ের বাড়িতে ১দিন থাকি। তারপর ১২ জানুয়ারী মেয়ে-জামাই, নাতি,নাতনি, বেয়াই ও তাদের পরিবারের সদস্যদের নিয়ে কোটালীপাড়ার গ্রামের বাড়িতে আসি। এখন আমরা বাড়িতে চাঁদের হাঁট বসেছে। যারাই আমার বাড়িতে আসছে তাদের মিষ্টি মুখ করাচ্চি। শনিবার জামাই তার বাবা ও স্বজনদের নিয়ে ব্রাহ্মনবাড়িয়া চলে গেছে। আমার মনের কষ্ট দূর না হওয়া পর্যন্ত মেয়েকে আমার বাড়িতে রেখে দিয়েছি। সে বেশ কিছু দিন আমার বাড়িতে থাকবে। হারানো মেয়েকে এভাবে ফিরে পাব তা কোন দিনই ভাবিনি। এ জন্য আমি আল্লাহর কাছে বিশেষ কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।
তানিয়া আক্তার বলেন, ঢাকায় বাবার ফুফুর মেয়ের মেয়ের সাখে আমি স্কুলে যাই। স্কুলের দারোয়ান আমাকে স্কুলে ঢুকতে দেয়নি। বাসার রাস্তা না চেনায় আমি পথ হারিয়ে সংসদ ভবনের সামনে চলে যাই।সেখানে সারাদিন রড় পর্দায় টেলিভিশন দেখি। রাত হলে কান্নাকাটি শুরু করি। এক হিন্দুলোক আমাকে তার বাড়িতে নিয়ে যায়। পরের দিন তিনি আমাকে নিয়ে বিভিন্ন স্থানে খোঁজ খবর নেন। পরে তিনি তার বোনের বাড়িতে আমাকে নিয়ে যান। কিন্তু তার বোন আমাকে রাখতে রাজি হননি। তার বোনের বাড়ি ওয়ালার স্ত্রীর মা আরজুদা বেগম মিলন ও তার ছেলে রিপন আমাকে তাদের সাথে কলাবাগানের বাড়িতে নিয়ে যায়। আমি রিপনকে বাবা ডাকি। তিনি কলাবাগন মসজিদের ইমাম ছিলেন। বর্তমানে তিনি জার্মাণে থাকেন। তাদের বাড়ি ব্রাহ্মনবাড়িয়া জেলার কসবা উপজেলায় রায়তলা গ্রামে। তারা আমাকে কখনো বাবা মায়ের অভাব বুঝতে দেয়নি। বাবা মায়ের কাছে আমাকে ফিরিয়ে দিতে অনেক চেষ্টা করেছে। আরজুদা বেগম ১ বছর আগে মারা গেছেন। আমি তাকে দাদু ডাকতাম। তিনি আমাকে খুবই আদর করতেন। আমি তার রুহের মাগফিরাত কামনা করছি। আমার বাবা রিপনের জন্যও আমি সব সময় দোয়া মোনাজাত করি।
আমার স্বামী, শ্বশুর ও শাশুড়ি সহ শ্বশুরবাড়ির সবাই খুবই ভাল মানুষ। তারা আমাকে খুব ভালবাসে। এসব দিক দিয়ে আমি খুবই ভাল আছি। এখন মা-মাকে পেয়ে আমর মতো শুখি আর কেউ নেই।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..
আজকের গোপালগঞ্জ বিল্ড ফর নেশনের একটি উদ্যোগ
Theme Developed BY ThemesBazar.Com