1. bd35be9017d4c9453cd35cbbf143797e : admi2017 :
  2. editor@ajkergopalganj.com : Ajker Gopalganj : Ajker Gopalganj
শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৭:৫৭ পূর্বাহ্ন

মনটা টুঙ্গিপাড়ায়……… প্রধানমন্ত্রী

শেখ জাবেরুল ইসলাম (বাধন)
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ১৭ মার্চ, ২০২১
  • ১৭৭ বার পঠিত

আজকের গোপালগঞ্জ প্রতিবেদক
রাষ্টীয় কাজে ব্যস্ত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দীর্ঘদিন টুঙ্গিপাড়া আসতে না পেরে বলেছেন, আমার মনটা টুঙ্গিপাড়ার মাটিতেই পড়ে আছে। দূরে আছি এটা ঠিক। খুব তাড়াতাড়িই টুঙ্গিপাড়ায় আসবো।
জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুািজবুর রহমানের ১০১ তম জম্ম বার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষ্যে বুধবার গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ার অনুষ্ঠানে ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত হন প্রধানমন্ত্রী। তিনি টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিসৌধে উপস্থিত শিশুদের সাথে কথা বলার সময় এ অনুভূতি ব্যক্ত করেন।
শিশু সমাবেশে প্রধানমন্ত্রীর সাথে কথা বলে ৪র্থ শ্রেণির শিক্ষার্থী শ্রেয়া বিশ্বাস। ওই শিক্ষার্থী প্রধানমন্ত্রী কবে টুঙ্গিপাড়া আসবেন বলে প্রশ্ন করে।
তার জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, অবশ্যই আমি আসবো। আমার মনটা পড়ে আছে টুঙ্গিপাড়ায়।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমি হয়েতো দূরে আছি, এটা ঠিক। তবে তুমিতো জানযে, ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়েছি বলেই দূরে থেকেও অন্তত চোখের দেখাতো দেখতে পাচ্ছি। কথাতো বলতে পারছি তাই না? ডিজিটাল বাংলাদেশ না হলেতো এটা করতে পারতাম না।
প্রধানমন্ত্রী শিশুদের বলেন, রাষ্ট্রীয় কাজে ব্যস্ত থাকায় টুঙ্গিপাড়া যেতে পারিনি।
বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা বলেন, আমি এতটুকু বলতে পারি, মনটা টুঙ্গিপাড়ায়। রাষ্ট্রীয় কাজের জন্য আমি এখানে বসে আছি। কিন্তু সব সময় আমি ১৭ মার্চ টুঙ্গিপাড়া থাকি। আমার ছোট বোন রেহানাও আছে। দু’ জনেরই থাকার কথা । আমাদের জাতির পিতার জম্মশত বার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীর অনুষ্ঠানে অনেক বিদেশী অতিথি এসেছে। মালদ্বীপের রাষ্ট্রপতি ঢাকায় এসেছে। তাকে নিয়ে অনুষ্ঠান হচ্ছে। এ জন্য টুঙ্গিপাড়া আসতে পারলামনা। তবে আমি তাড়াতাড়ি টুঙ্গিপাড়া আসবো।
মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দ্রিরা এমপির সভাপতিত্বে টুঙ্গিপাড়া বঙ্গবন্ধু সমাধিসৌধের পাবলিক প্লাজার বকুলতলা চত্বরে আয়োজিত শিশু কিশোর সমাবেশে বক্তব্য দেন শিশু শিক্ষার্থী শ্রেয়া বিশ্বাস, বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন বাংলাদেশ শিশু একাডেমির চেয়ারম্যান লাকী ইনাম। স্বাগত বক্তব্য দেন মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব মোঃ সায়েদুল ইসলাম।
এরআগে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে বিভিন্ন প্রতিযোগিতার বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেয়া হয়। প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য শেষে অনুষ্ঠিত হয় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।
উল্লেখ্য,গত বছর বঙ্গবন্ধুর জম্ম শতবার্ষিকীর সংক্ষিপ্ত অনুষ্ঠানে টুঙ্গিপাড়ার নিজের বাড়িতে আসেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তারপর দেশে করোনা সংক্রমন বৃদ্ধির পর আর প্রধানমন্ত্রী টুঙ্গিপাড়া সফরে আসেননি।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শিশু-কিশোরদের অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদী হওয়ার পাশাপাশি ন্যায় ও সত্যের পথে চলার আহবান জানিয়ে বলেন, সব সময় যে কোন অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করা, সেই সাথে সাথে ন্যায় ও সত্যের পথে থাকা। তাহলে জীবনে বড় হতে পারবে। জীবনটাকে উন্নত করতে পারবে। মা-বাবার মুখও উজ্জ্বল হবে। লেখাপাড়া ও নৈতিক চর্চার মাধ্যমে নিজেদের যোগ্য হিসেবে গড়ে তোলার জন্য আহবান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমি ছোট্ট সোমামনি তোমাদের কাছে এটাই চাই। তোমরা তোমাদের জীবনটা সুন্দর করো। লেখাপড়া শেখ। সেই সাথে তোমাদের দরকার হচ্ছে নিয়ম শৃংখলা মানা, অভিভাবকদের কথা শোনা, শিক্ষকদের কথা মেনে চলা, এটা খুব দরকার।
শিশুদের জীবনকে সুন্দর ও রঙিন করে গড়ে তুলতে সরকার কাজ করছে দাবি করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা ছোট শিশুদের জীবন আরো সুন্দর, আরো রঙিন ও সার্থক করে গড়ে তুলতে চাই। সেটাই আমাদের লক্ষ্য। আমি এটাই চাই, আজকের শিশুরা সুন্দরভাবে গড়ে উঠবে, জীবনটাকে সুন্দর করবে।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, শিশুরাইতো একদিন আমাদের মতো মন্ত্রী হবে বা বড় বৈজ্ঞানিক হবে। তারা যেন নিজেদের গড়তে পারে, আমরা তার ব্যবস্থা করে দিয়ে যাচ্ছি। করোনা মহামারীর মধ্যে শিশুরা স্কুল-কলেজে যেতে না পেরে কষ্টে আছে বলেও প্রধানমন্ত্রী তার বক্তব্যে উল্লেখ করেন। বলেন,করোনার এই প্রাদুর্ভার কেটে যাবে। স্কুল আমরা তখনই খুলে দেব। তখন তোমরা স্কুলে যেতে পারবে।
তিনি বলেন, তোমরা ঘরে বসে পড়াশেনা ও খেলাধূলা করবে। খেলাধূলা ও সংস্কৃতি চর্চা একান্ত ভাবে অপরিহার্য। তোমরা তো ভবিষ্যৎ, তোমরাই এ দেশকে এগিয়ে নেবে।
নারী ও শিশুর প্রতি নির্যাতন বন্ধে সরকার কঠোর অবস্থানে রয়েছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, নারী ও শিশুর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধে জাতীয় কর্মপরিকল্পনা ২০১৩-২০২৫ প্রনয়ন করা হয়েছে। শিশুর ওপর যেন কোন প্রকার অত্যাচার-নির্যাতন না হয়।
শিশুরা যেন মাদক-সন্ত্রাসে জড়িয়ে না পড়ে সে দিকে সবাইকে সজাগ দৃষ্টি দেয়ার আহবান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, সচেতনতা সৃষ্টি করে শিশুদের জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসের প্রভাব থেকে মুক্ত রাখতে হবে। মাদকের হাত থেকে শিশুদের মুক্ত রাখতে হবে। যারা বয়স্ক মুরব্বি আছেন, অভিভাবক আছেন, শিক্ষক আছেন, মসজিদের ইমাম থেকে শুরু করে বিভিন্ন ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে যারা আছেন এবং জনগনের প্রতিনিধি সহ সকলকে এ ব্যাপারে সচেতন থাকতে হবে। আমাদের শিশুদের জীবনটা সুন্দর হোক, আমরা সেটাই চাই।
শিশুদের প্রতি জাতির পিতার ভালবাসার কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, তিনি সব সময় এটাই ভাবতেন যে, শিশুরাই তো ভবিষ্যৎ এবং শিশুদের তিনি এত ভাল বাসতেন বলেই আমরা জাতির পিতার জম্ম দিনটাকে জাতীয় শিশু দিবস হিসেবে ঘোষনা দিয়েছি। অর্থাৎ শিশুরাও একটা গুরুত্ব পাবে। তাদের জন্য একটা দিবস থাকবে। সেই সময়ে সকলেই তাদের কথা চিন্তা করবে। তাদের ভাল মন্দ দেখবে। তাদের জন্য কাজ করবে।
এদিন সকাল সাড়ে ১০ টায় প্রথম রাষ্ট্রপতি মোঃ আব্দুল হামিদের পক্ষে তার সামরিক সচিব মেজর জেনারেল এস এম সালাহ উদ্দিন ইসলাম ও পরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষে প্রধানমন্ত্রীর সামরিক সচিব মেজর জেনারেল নাকিব আহমেদ চৌধূরী বঙ্গবন্ধুর সমাধিসৌধের বেদীতে ফুল দিয়ে জম্ম বার্ষিকীর শ্রদ্ধা জানান। এ সময় ৩ বাহিনীর পক্ষ থেকে একটি চৌকস দল গার্ড অব অর্নার প্রদান করে। বিউগলে বেজে ওঠে সুরের মূর্ছনা। তারপর পবিত্র ফাতেহাপাঠ, বঙ্গবন্ধু, ফজিলাতুন্নেছা মুজিব সহ ৭৫ এর ১৫ আগস্টের শহীদদের রুহের মাগফিরাত কামনায় দোয়া মোনাজাত করা হয়।
রাষ্ট্রীয় কর্মসূচী শেষে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে বঙ্গবন্ধুর সমাধিসৌধের বেদীতে পুস্পস্তবক অর্পন করে তাঁর স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়। এরপর গোপালগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগ, টুঙ্গিপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগ, টুঙ্গিপাড়া পৌরসভা, ছাত্রলীগ, যুবলীগ,যুব মহিলা আওয়ামী লীগ , স্বেচ্ছাসেবক লীগ, গোপালগঞ্জ শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, গণপূর্ত সহ বিভিন্ন সামাজিক,সাংস্কৃতিক, শ্রমজীবী, পেশাজীবী সংগঠনের পক্ষ থেকে বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়।
এ সময় ৩ বাহিনীর প্রধানগণ, শেখ হেলাল উদ্দিন এমপি, প্রেসিডিয়াম সদস্য শাহজাহান খান এমপি, লেঃ কর্ণেল (অবঃ) মুহাম্মদ ফারুক খান এমপি, জাহাঙ্গীর কবির নানক, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ.ফ.ম বাহাউদ্দিন নাছিম, সাংগঠনিক সম্পাদক এস.এম কামাল, শেখ সারহান নাছের তন্ময় এমপি, শ্রম বিষয়ক সম্পাদক হাবিুর রহমান সিরাজ, উপ দপ্তর সম্পাদক আবু ছায়েম খান, কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য শাহাবুদ্দিন ফরাজী, আব্দুল আউয়াল শামীম, গোপালগঞ্জে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি চৌধূরী এমদাদুল হক, সাধারণ সম্পাদক মাহাবুব আলী খান, টুঙ্গিপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ আবুল বশার খায়ের, সাবেক সভাপতি মোঃ ইলিয়াস হোসেন, সাধারণ সম্পাদক মোঃ বাবুল শেখ, উপজেলা চেয়ারম্যান শেখ লুৎফার রহমান বাচ্চু, সেলায়মান বিশ্বাস, সুব্রত ঠাকুর হিল্টু, পৌর মেয়র কাজী লিয়াকত আলী লেকু, শেখ তোজাম্মেল হক টুটুল, টুঙ্গিপাড়া পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ সাইফুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক মোঃ ফোরকান বিশ্বাস সহ পদস্থ সমারিক ও বেসামরিক কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
এরপর বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে মানুষের ঢল নামে। সর্বস্তরের মানুষ ‘শুভ শুভ শুভ দিন বঙ্গবন্ধুর জম্মদিন’ শ্লোগানে মুখরিত করে প্রিয় নেতার সমাধিসৌধের বেদীতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। তার জন্য দোয়া মোনাজাত করেন। ফুলে ফুলে ছেয়ে যায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিসৌধ। মানুষের পদচারনায় মুখরিত হয়ে ওঠে গোটা টুঙ্গিপাড়া জনপদ।
বঙ্গবন্ধুর জম্মদিন উপলক্ষ্যে টুঙ্গিপাড়া বর্নিল সাজে সাজানো হয়। টুঙ্গিপাড়া উপজেলায় বিরাজ করছে উৎসবের আমেজ।
এ দিকে রাত ১২ টা ১ মিনিটে বঙ্গবন্ধুর জম্মদিনের প্রথম প্রহরে টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিসৌধে কেক কেটে জম্মবার্ষিকীর অনুষ্ঠানের শুভ সূচনা করা হয়। টুঙ্গিপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে গোপালগঞ্জের জেলা প্রশাসক শাহিদা সুলতানা, কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এস.এম কামাল, আওয়ামী লীগ নেতা এম. বদরুল আলম বদর, টুঙ্গিপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ বাবুল শেখ সহ প্রশাসনের পদস্থ কর্মকর্তা ও আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
বঙ্গবন্ধুর জম্ম শতবার্ষিকী উপলেক্ষ্যে গোপালগঞ্জের ৫ উপজেলার ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে বঙ্গবন্ধুর জন্য বিশেষ প্রার্থনা করা হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..
আজকের গোপালগঞ্জ বিল্ড ফর নেশনের একটি উদ্যোগ
Theme Developed BY ThemesBazar.Com