1. bd35be9017d4c9453cd35cbbf143797e : admi2017 :
  2. editor@ajkergopalganj.com : Ajker Gopalganj : Ajker Gopalganj
সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০২:২১ পূর্বাহ্ন

ভারতীয় ভেরিয়েন্ট সন্দেহে গোপালগঞ্জের ১৫ নমুনা আইইডিসিআরে 

  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ২৮ মে, ২০২১
  • ৩২০ বার পঠিত

আজকের গোপালগঞ্জ প্রতিবেদক

ভারতীয় ভেরিয়েন্ট সন্দেহে শুক্রবার জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ জিনম সিকোয়েন্সের জন্য ১৫ টি নমুনার আইইডিসিআরে পাঠিয়েছে বলে জানিয়েছেন গোপালগঞ্জ সিভিল সার্জন কার্যালয়ের মেডিকেল অফিসার ডা. এসএম সাকিবুর রহমান।

গোপালগঞ্জে অধিকহারে করোনা রোগী সনাক্ত হওয়ায় সদর উপজেলার সাতপাড়, সাহাপুর ও বৌলতলী ইউনিয়নে আজ শুক্রবার থেকে ৭ দিনের কঠোর লকডাউন দিয়েছে স্থানীয় প্রশাসন।

বৃহস্পতিবার বিকেলে উপজেলা প্রশাসন, পুলিশ ও স্বাস্থ্য বিভাগ মাঠে নেমে ওই ৩ ইউনিয়নে লকডাউনের ঘোষনা দেন। এ সময় গোপালগঞ্জ সদর থানার ওসি মোঃ মনিরুল ইসলাম সহ স্বাস্থ্য বিভাগের পদস্থ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

শুক্রবার সকালে গোপালগঞ্জ সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ রাশেদুর রহমান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

 

ওই কর্মকর্তা আরো জানান, লক ডাউনের আওতামুক্ত থাকবে নিত্য প্রয়োজনীয পন্য, ঔষুধ, কৃষি পণ্যের দোকান। এসব দোকান সকাল থেকে বিকাল ৪ টা পর্যন্ত খোলা থাকবে । কঠোর লকডাউনে অন্যান্য ব্যবসা প্রতিষ্ঠান , ব্যাংক, এনজিওর কার্যক্রম বন্ধ থাকবে। এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় সব উদ্যোগ গ্রহন করা হয়েছে। ব্যাংক ও এনজিওকে চিঠি দিয়ে বিষয়টি অবহিত করা হয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আরো জানান, বৌলতলী ইউনিয়নের তেলিভিটা গ্রামের হলধর কীর্ত্তনীয়ার ছেলে নিভাষ বিশ্বাস করোনার উপসর্গ নিয়ে ৭ দিন আগে মৃত্যু বরণ করেন। পরে ওই পরিবারের আরো ৩ জন করোনায় আক্রান্ত হন। নিভাষের সংস্পর্শে আশা ওই গ্রামের ১৬৮ জনের নমুনা দু’ দফা সংগ্রহ করে পরীক্ষা করে ৪১ জনের দেহে করোনা সনাক্ত হয়। এছাড়া বৌলতলী, সাহাপুর ও সাতপাড় ইউনিয়ন হিন্দু অধ্যুষিত। এ সব এলাকার মানুষ বৈধ ও অবৈধ পথে ভারত যাতায়াত করে থাকেন। বৈধ পথে যাতায়াত কারীদের তথ্য আমাদের কাছে আছে। কিন্তু অবৈধ পথে যাতায়াতকারীদের তথ্য আমাদের কাছে নেই। তারা সব সময় তথ্য গোপন করে। তাই আক্রান্তদের মধ্যে ভারতীয় ভেরিয়েন্ট থাকার আশংকা করা হচ্ছে। সংক্রমন প্রতিরোধে সাতপাড়, সাহাপুর ও বৌলতলী ইউনিয়নের সব হাট বাজার লকডাউন ঘোষনা করা হয়েছে। ওই এলাকার মানুষের নমুনা সংগ্রহ করে করোনা পরীক্ষা অব্যাহত রাখা হবে। এছাড়া গণপরিবহন চলাচল সীমিত করা হয়েছে। অতিপ্রয়োজন ছাড়া সাধারণ মানুষকে ঘরের বাইরে যেতে নিষেধ করা হয়েছে। লকডাউন চলাকালে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারে সরকারি খাদ্য সহায়তা প্রদান করা হবে।

গোপালগঞ্জ সিভিল সার্জন কার্যালয়ের মেডিকেল অফিসার ডা. এসএম সাকিবুর রহমান জানান, তেলিভিটা গ্রামে আক্রান্ত ৪১ জনের মধ্যে করোনার সিনটম নেই। তারা হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন। এদের মধ্যে থেকে ১৫ জনের নমুনা ঢাকা আইইডিসিআরে জিনম সিকোয়েন্সের জন্য পাঠানো হয়েছে। রিপোর্ট আসার পর ভেরিয়েন্ট সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া যাবে। তেলিভিটা গ্রামের সাথে আশপাশের সব গ্রামের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেয়া হয়েছে। নদী পারাপাড়ের খেয়া বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। সেখানে একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মীরা সার্বক্ষনিক কাজ করে যাচ্ছে।

ওই কর্মকর্তা আরো বলেন, এ পর্যন্ত গোপালগঞ্জে করোনায় ৩৭৯১ জন আক্রান্ত হয়েছেন। মৃত্যু বরণ করেছেন ৩৯ জন। গত মার্চে গোপালগঞ্জে করোনা আক্রান্তের হার ছিলো ৪.৫%। মে মাসে আক্রান্তের হার ১৪.৫০% এ দাড়িয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..
আজকের গোপালগঞ্জ বিল্ড ফর নেশনের একটি উদ্যোগ
Theme Developed BY ThemesBazar.Com