1. bd35be9017d4c9453cd35cbbf143797e : admi2017 :
  2. editor@ajkergopalganj.com : Ajker Gopalganj : Ajker Gopalganj
মঙ্গলবার, ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৭:৩২ অপরাহ্ন

সিরাজ চেয়ারম্যানের কোটি টাকার নিয়োগ বাণিজ্য

  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ১৮ জুন, ২০২১
  • ২১০২ বার পঠিত

সিকদার রাসেল
গ্রাম পুলিশ, স্কুলের দপ্তরী, শিক্ষক কর্মচারী সহ বিভিন্ন নিয়োগে গোপালগঞ্জের কাশালিয়া ইউপি চেয়ারম্যান ও মুকসুদপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম মিয়ার বিরুদ্ধে কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে।
তিনি কাশালিয়া ইউনিয়নের ১১ টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দপ্তরী নিয়োগে অন্তত ৭০ লাখ টাকা নিয়েছে। গ্রাম পুলিশ নিয়োগ , স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি সিলেকশন , কাশালিয়া এমকেবিএইচ উচ্চ বিদ্যালয় ও বাঁশবাড়ীয়া-উজানী-কাশালিয়া (বিইউকে) উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক, কর্মচারী, অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর নিয়োগে আরো অন্তত ৮০ লাখ টাকা আদায় করেছেন বলে ক্ষমতাধর ওই ইউপি চেয়ারম্যানের বিরিুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে।
আজকের গোপালগঞ্জের ফেসবুক পেজে সম্প্রতি কাশালিয়া ইউপি চেয়ারম্যান ও প্রভাবশালী আওয়ামী লীগ নেতা সিরাজুল ইসলামের অপকর্ম নিয়ে প্রচারিত একটি ভিডিও ভাইরাল হওয়ার পর তার দুর্নীতি, জমি দখল, প্রতারণা, নিয়োগ বাণিজ্য, অনিয়ম, তার ভাই ফারুক মিয়ার সন্ত্রাসী কর্মকান্ড ও ছেলে রিমুর মাদক ব্যবসা এবং উঠতি বয়সের তরুণীদের যৌন হয়রাণী ও উত্ত্যক্তের তথ্য ফাঁস হতে শুরু করেছে। ক্ষতিগ্রস্থরা এ ব্যাপারে আজকের গোপালগঞ্জের এ প্রতিবেদকের কাছে ভুরি-ভুরি অভিযোগ করেছেন।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে কাশালিয়া ইউনিয়নের বামনগাতি, বেদগ্রাম, হাজরাগাতি, নিশ্চিন্তপুর, দাড়িয়া, নয়াকান্দি, শুয়াশুর, দিঘড়া গ্রামের একাধিক ব্যক্তি আজকের গোপালগঞ্জকে বলেন, ইউনিয়নের ১১টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দপ্তরী নিয়োগে প্রত্যেকের কাছ থেকে ইউপি চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম মিয়া ৫ লাখ থেকে ৭ লাখ টাকা আদায় করেছেন। এ নিয়োগে তিনি অন্তত ৭০ লাখ টাকা কামিয়েছেন। চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম মিয়ার ভাই ফিরোজ মিয়ার ছেলে শামীম মিয়াকে বামনগাতি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দপ্তরী পদে নিয়োগ দিয়ে ৫ লাখ টাকা নিয়েছেন। গ্রাম পুলিশ নিয়োগ , স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি সিলেকশন সহ কাশালিয়া এমকেবিএইচ উচ্চ বিদ্যালয় ও বাঁশবাড়ীয়া-উজানী-কাশালিয়া (বিইউকে) উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক, কর্মচারী নিয়োগ দিয়ে আরো অন্তত ৮০ লাখ টাকার ঘুষ বানিজ্য করেছেন।
চেয়ারম্যানের ভাই ফিরোজ মিয়া বলেন, আমার ছেলেকে বামনগাতি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দপ্তরী পদে নিয়োগ দিয়েছে চেয়ারম্যান। এ নিয়োগ আমাদের টাকা খরচ করতে হয়েছে। টাকা দিয়েও আমার ছেলে চাকরি পেয়েছে। তাই এ ব্যাপারে আমাদের কোন অভিযোগ নেই।
হাজরাগাতি গ্রামের রামকৃষ্ণ ঢালী বলেন, আমাকে হাজরাগাতি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি বানাতে সিরাজ চেয়ারম্যান ৩ লাখ টাকা নেন। পরে তিনি আমাকে ওই স্কুলের সভাপতি পদে বসান। শুনেছি তিনি ইউনিয়নের সব স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি বানাতে টাকা নিয়েছেন।
ওই গ্রামের মদন ঢালী বলেন, গ্রাম পুলিশ (চৌকিদার) পদে চাকরি দেয়ার কথা বলে আমার কাছ থেকে সিরাজ চেয়ারম্যান টাকা নেয়। পরে চাকরি দিতে না পেরে টাকা ফেরত দেয়। তিনি আরো জানান, টাকার বিনিময়ে চেয়ারম্যান সিরাজ চেয়ারম্যান গ্রাম পুলিশ নিয়োগ দিয়েছেন বলে অভিযোগ রয়েছে।
বাঁশবাড়ীয়া-উজানী-কাশালিয়া (বিইউকে) উচ্চ বিদ্যালয়ের অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর পদে পছন্দের প্রার্থী তন্ময় সরকারকে নিয়োগ দিয়ে চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম ১০ লাখ টাকার নিয়োগ বানিজ্য করেছেন বলে ২০১৯ সালের ১০ নভেম্বর স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সদস্য ফরিদ আহম্মেদ গোপালগঞ্জের জেলা প্রশাসক বরাবর লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।
এছাড়া কাশালিয়া এমকেবিএইচ উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ইউপি চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম মিয়া। তিনি ওই স্কুলের শিক্ষক-কর্মচারী নিয়োগও লাখ লাখ টাকা কামিয়েছেন বলেও অভিযোগ রয়েছে।
এ ব্যাপারে জানতে চাওয়া হলে অভিযুক্ত কাশালিয়া ইউপি চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম মিয়া বলেন, দপ্তরী, শিক্ষক, কর্মচারী, গ্রাম পুলিশ ও স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি নিয়োগ দেয়ার ক্ষমতা আমার নেই। নিয়োগে আমি সরাসরি কোন টাকা নেইনি। তবে তিনি একটি মাধ্যম দিয়ে টাকা নেয়ার কথা স্বীকার করে বলেন, এ টাকার ভাগ রাঘব বোয়ালদের দিতে হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..
আজকের গোপালগঞ্জ বিল্ড ফর নেশনের একটি উদ্যোগ
Theme Developed BY ThemesBazar.Com