1. bd35be9017d4c9453cd35cbbf143797e : admi2017 :
  2. editor@ajkergopalganj.com : Ajker Gopalganj : Ajker Gopalganj
বৃহস্পতিবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৭:৫০ পূর্বাহ্ন

জোর করে স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর; চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মামলা

  • আপডেট টাইম : শনিবার, ২১ আগস্ট, ২০২১
  • ৭ বার পঠিত

আজকের গোপালগঞ্জ প্রতিবেদক

গোপালগঞ্জে যুবককে ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে জিম্মি করে জোর করে ফাঁকা স্ট্যাম্প ও কাগজে স্বাক্ষর নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে এক ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে।

কাশিয়ানী উপজেলার হাতিয়াড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান দেবদুলাল বিশ্বাসের বিরুদ্ধে এ অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় ওই যুবক বাদী হয়ে বৃহস্পতিবার (১৯ আগস্ট) গোপালগঞ্জের আদালতে একটি মামলা দায়ের করেছেন।

মামলা বিবরণে জানা গেছে, উপজেলার হাতিয়াড়া গ্রামের দীপংকর রঙ্গের জায়গা একই গ্রামের গোবিন্দ গাইন জোরপূর্বক দখলের উদ্দেশ্যে বালু ফেলে ভরাটের চেষ্টা করেন। এ ব্যাপারে দীপংকর বাদী হয়ে গোপালগঞ্জ আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলা দায়েরের পরের দিন দীপংকর ওয়ারিশন সনদপত্র আনতে ইউনিয়ন পরিষদে চেয়ারম্যানের কাছে যান। ওয়ারিশন সনদপত্র কী কাজে লাগবে চেয়ারম্যান জানতে চাইলে, গোবিন্দ গাইনের সাথে তার জমি সংক্রান্ত বিরোধ ও দায়েরকৃত মামলার কাজে লাগবে বলে দীপংকর চেয়ারম্যানকে জানান। তখন চেয়ারম্যান দীপংকরকে কম্পিউটারে কম্পোজ করে একটি ওয়ারিশন সনদপত্র করে নিয়ে আসতে বলেন। চেয়ারম্যানের কথামতো দীপংকর কম্পিউটারে একটি সনদপত্র করে চেয়ারম্যানের কাছে নিয়ে গেলে, তিনি সেটি রেখে দীপংকরকে একদিন পরে আসতে বলেন। পরের দিন দীপংকর চেয়ারম্যানের কাছে গেলে সনদপত্রে ইউপি সদস্য ও গ্রাম পুলিশের সীল-স্বাক্ষর লাগবে বলে জানান। দীপংকর সীল-স্বাক্ষর নিয়ে দু’দিন পর (১৬ আগস্ট) ইউনিয়ন পরিষদে গেলে চেয়ারম্যান দেবদুলাল বিশ্বাস তাকে দেখেই উত্তেজিত হয়ে বলে, ‘গোবিন্দ গাইনের বিরুদ্ধে করা মামলা তুলে আনতে বলেন। এ মামলা আদালতে চলবে না।’ এতে দীপংকর রাজি না হওয়ায় চেয়ারম্যান তাকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ ও মারধর করেন। এক পর্যায় ইউনিয়ন পরিষদ ভবনে দীপংকরকে জিম্মি করে ভয়ভীতি দেখিয়ে তার কাছ থেকে ১ শ’ টাকার ৩টি নন জুডিশিয়াল ফাঁকা স্ট্যাম্প ও ফাঁকা কাগজে স্বাক্ষর করিয়ে নেন। এ সময় তিনি দীপংকরের কাছে ১ লাখ টাকা দাবি করেন ও পুলিশ দিয়ে হয়রানী এবং গ্রাম ছাড়ার হুমকি দেন বলেও মামলায় উল্লেখ করা রয়েছে।

ইউপি চেয়ারম্যান দেবদুলাল বিশ্বাস বলেন,‘এলাকার একটি মহল দীপংকরের ভুয়া ওয়ারিশন সনদপত্রে আমাকে দিয়ে স্বাক্ষর করিয়ে নিতে চেয়েছিলো। এটি করলে আমি বিপদে পড়ে যাব। বিষয়টি বুঝতে পেরে আমি দীপংকরকে পুলিশে দিয়েছিলাম।’

কাশিয়ানী থানার ওসি (তদন্ত) মুহাম্মদ ফিরোজ আলম জানান, ‘এখন থানায় এ ধরণের মামলার কোন কাগজপত্র এসে পৌছায়নি। পৌছালে মামলা নথিভূক্ত করে পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..
আজকের গোপালগঞ্জ বিল্ড ফর নেশনের একটি উদ্যোগ
Theme Developed BY ThemesBazar.Com