1. bd35be9017d4c9453cd35cbbf143797e : admi2017 :
  2. editor@ajkergopalganj.com : Ajker Gopalganj : Ajker Gopalganj
মঙ্গলবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৫:১৩ অপরাহ্ন

পরকীয়া করতে এসে পুলিশ সদস্য শ্রীঘরে 

  • আপডেট টাইম : শনিবার, ২১ আগস্ট, ২০২১
  • ৯ বার পঠিত

আজকের গোপালগঞ্জ প্রতিবেদক

গোপালগঞ্জে ব্যবসায়ীর স্ত্রীর সাথে পরকীয়া করতে এসে পুলিশ সদস্য রিয়াজুল ইসলাম এখন শ্রীঘরে। শুক্রবার সন্ধ্যায় গোপালগঞ্জ শহরের ৬ নং ওয়ার্ডের কমিশনার রোডের ভাড়া বাড়িতে পুলিশ সদস্যকে হাতেনাতে আটক করেন ওই গৃহবধূর স্বামী। এ সময় ওই এলাকায় শত শত মানুষ জড়ো হয়।

ওই নারীর স্বামী বিষয়টি গোপালগঞ্জ থানা পুলিশকে জানায়। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ওই পুলিশ সদস্য রিয়াজুল ইসলামকে উদ্ধার করে গোপালগঞ্জ সদর থানায় নিয়ে যায়।

পুলিশ সদস্য রিয়াজুল ইসলাম (কনস্টেবল নং-৭২৪)। তিনি বর্তমানে ভোলা জেলা নৌ-পুলিশে কর্মরত রয়েছেন। তার বাড়ি সিরাজগঞ্জ জেলার উল্লাপাড়ায়।

শনিবার সকালে ওই নারীর স্বামী গোপালগঞ্জের পুলিশ সুপার আয়েশা সিদ্দিকার কাছে এ ব্যপারে লিখিত অভিযোগ করেন।

ওই নারীর ব্যবসায়ী স্বামী অভিযোগ করে বলেন, গোপালগঞ্জ জেলায় ওই পুলিশ সদস্য রিয়াজুল ইসলাম চাকরি করত। সে সুবাদে আমার স্ত্রীর সাথে ওই পুলিশ সদস্যের অবৈধ সম্পর্ক গড়ে ওঠে। বিষয়টি আমি জানতে পেরে উভয়কে এ ধরনের কাজ থেকে বিরত থাকতে অনুরোধ করি। কিন্তু আমার কথায় কর্ণপাত না করে তারা এই অবৈধ সম্পর্ক চালিয়ে যায়। আমার স্ত্রী সবসময় তাদের এ সম্পর্কের কথা অস্বীকার করে আসছিলো। এঘটনাকে কেন্দ্র করে ১ বছর ধরে আমাদের সংসারে অশান্তি চলছে। এ নিয়ে আমি মানসিকভাবে ভেঙ্গে পড়েছি। এরমধ্যে আমার স্ত্রী আমাকে বিদেশে পাঠানোর জন্য তোড়জোড় শুরু করে। স্ত্রীর প্রতাারণর শিকার হয়ে একপর্যায়ে আমার পৈত্রিকসূত্রে পাওয়া একটি মূল্যবান জমি তার নামে লিখে দেই। এছাড়া আমাদের পৈত্রিক বাড়ি ছেড়ে একই মহল্লায় আলাদা বাসা ভাড়া নিতে আমার স্ত্রী আমাকে বাধ্য করে। স্ত্রীর অবৈধ সম্পর্কের সত্যতা যাচাই ও হাতেনাতে ধরতে চেষ্টা করি। গত ১৮ আগস্ট হতে জরুরী প্রয়োজনে আমার খুলনায় রাত্রিযাপন করতে হবে বলে আমার স্ত্রীকে জানিয়ে গোপালগঞ্জে আমার এক বন্ধুর বাড়িতে লুকিয়ে থাকি। আমার ভাড়ার বাসা ফাঁকা পেয়ে আমার স্ত্রী তার পরকীয়া প্রেমিককে নিয়ে ওই বাসায় রাত্রিযাপন করে। প্রতিবেশীরা বিষয়টি আমাকে নিশ্চিত করে। পরে আমি বাসায় গিয়ে তাদেরকে হাতেনাতে ধরি। পরে পুলিশ সদস্যকে পুলিশের কাছে সোপর্দ করি।

ব্যবসায়ীর স্ত্রী বলেন, আমি আমার স্বামীকে ১ বছর আগে তালাক দিয়েছি। তবে তিনি এ সংক্রান্ত কোন কাগজ গণমাধ্যম কর্মীদের দেখাতে পারেন নি ।

গোপালগঞ্জ সদরন থানার ওসি (তদন্ত) শীতল বালা বলেন, বিষয়টি পুলিশের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে। তাকে পুলিশ হেফাজতে রাখা হয়েছে। তদন্তে ওই পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেলে তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..
আজকের গোপালগঞ্জ বিল্ড ফর নেশনের একটি উদ্যোগ
Theme Developed BY ThemesBazar.Com